আসরের সবচেয়ে লজ্জাজনক ব্যাটিং করল বাংলাদেশ

সংগৃহীত ছবি

আসরের সবচেয়ে লজ্জাজনক ব্যাটিং করল বাংলাদেশ

অনলাইন ডেস্ক

নেপালের বিপক্ষে নিজেদের ব্যাটিং দৈন্যদশার সবটাই যেন দেখিয়ে দিলো বাংলাদেশ। সুপার এইটে ওঠার জন্য জয়ের বিকল্প নেই– এমন সমীকরণ মাথায় রেখে ব্যাট করতে নেমেছিল টাইগাররা। কিন্তু খর্বশক্তির দলের বিপক্ষে, মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচেই কি না আসরের সবচেয়ে লজ্জাজনক ব্যাটিং করল বাংলাদেশ।

নেপালের বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ কোনোরকমে পার করেছে শতরানের ল্যান্ডমার্ক।

৮৮ রানে ৯ উইকেট হারানোর পর টাইগারদের দলীয় শতরান পার হয় তাসকিন আহমেদের ১২ রানের কল্যাণে। নির্ধারিত ২০ ওভারও খেলা হয়নি বাংলাদেশের। ১৯.৩ ওভারে টাইগারদের স্কোর ১০৬ রান।

সোমপাল কামির প্রথম ওভারেই ধাক্কা।

প্রথম বলেই ফিরেছেন ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম। ইনিংসের শুরুতেই ডাউন দ্য উইকেটে চার্জ করে খেলতে চেয়েছিলেন। বিপদ বাড়লো তাতেই। সোমপালের গুড লেন্থের বলটায় ভালোভাবে সংযোগ হয়নি। ফিরতি ক্যাচ নিয়েছেন বোলার নিজেই।

সেই ওভারের শেষ বলেই বিপদে পড়তে পারতো বাংলাদেশ। এবার লিটন দাস মিস করলেন সোমপালের আউটসুইং ডেলিভারি। জোরালো আবেদনে সাড়াও দেন আম্পায়ার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান লিটন।

পরের ওভারে আসেন দীপেন্দ্র সিং আইরে। আগের ম্যাচে ৪ উইকেট পাওয়া দীপেন্দ্র আজ ফিরিয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তকে। ব্যাট হাতে শান্তর বাজে ফর্ম চলল এই ম্যাচেও। ৫ বলে ৪ রান করে সাজঘরে তিনি।

টপঅর্ডারের ব্যর্থতা বিশ্বকাপের আগে থেকেই। লিটন দাসও ধরে রাখলেন ব্যর্থতার ধারা। সোমপাল কামির বলে বিগ শট খেলতে চেয়েছিলেন ১০ রান করা লিটন। কিন্তু সেটাও ঠিকঠাক হলো না। উইকেটরক্ষক আসিফ শেখের কাছে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন লিটন।

পাওয়ারপ্লে শেষের ঠিক আগে ফিরে যান তাওহীদ হৃদয়। তবু মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ দুই চার মেরে বাংলাদেশকে ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। কিন্তু সাকিবের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হলে বড় বিপদে পড়ে বাংলাদেশ।

জাকের আলী ফিনিশার হিসেবে দলে জায়গা পেলেও হতাশ করেছেন আরেকবার। ২৬ বলে ১২ রান তার। যদিও সেটা দলের স্কোর ১০০ পর্যন্ত বড় ভূমিকাই রেখেছে। মাঝে ইনিংসের সর্বোচ্চ রান করা সাকিব ফেরেন ১৭ রানে।

রিশাদের ১ ছক্কা ও ১ চারে গড়া ১৩ রানের ইনিংস এবং তাসকিনের ১২ রান বাংলাদেশকে নিয়ে যায় ১০৬ পর্যন্ত।

news24bd.tv/কেআই

পাঠকপ্রিয়