২০২৫ সালের হজের কোটা ঘোষণা

২০২৫ সালের হজের কোটা ঘোষণা

অনলাইন ডেস্ক

২০২৫ সালে বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ করতে পারবেন। রোববার (২৩ জুন) সৌদি আরব থেকে হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন হজ কোটা প্রাপ্তির বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, তবে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় কত জন হজ করতে পারবেন, সেটা এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। আগামী জানুয়ারিতে হজ চুক্তির সময় সেটা নির্ধারণ করা হবে।

২০২৩ ও ২৪ সালেও বাংলাদেশের জন্য হজের কোটা ছিল ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জনের। কিন্তু ২০২৩ সালে ১ লাখ ২২ হাজার ৮৮৪ জন এবং এবার ৮৫ হাজার ২২৫ জন যাত্রী হজ পালনে সৌদি আরব যান। পর পর দুই বছর হজ কোটা পূরণ করতে না পারায় সৌদি আরব হজ কোটা কমিয়ে দিতে পারে বলে গুঞ্জন শোনা যায়।

২০০৯ সালে বাংলাদেশের হজযাত্রীর সংখ্যা ছিল ৫৮ হাজার ৬২৮ জন, যা ২০১৯ সালে বেড়ে হয় ১ লাখ ২৬ হাজার ৯২৩ জন।

করোনা পরিস্থিতির কারণে ২০২২ সালে হজযাত্রীর সংখ্যা কমে দাড়ায় ৬০ হাজার ১৪৬ জনে।

যদিও ২০২০ সালে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের জন্য ১০ হাজার হজ কোটা বাড়ানোর ঘোষণা সৌদি সরকার। সেবার ১ লাখ ৩৭ হাজার ১৯১ জনের কোটা বরাদ্দ হয়েছিল, কিন্তু করোনার কারণে বিদেশিদের জন্য হজ বন্ধ ছিল।

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর সংগঠন অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন বা ওআইসির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হজ কোটা নির্ধারণ করা হয়। ওআইসির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতি দশ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে এক হাজার জন হজে যেতে পারবে।

বাংলাদেশের বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী হজে যেতে আগ্রহীদের অনলাইনে প্রাক নিবন্ধন করতে হয়। নিবন্ধন সারা বছরই চলে। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হজ ব্যবস্থাপনা পোর্টালের তথ্য মতে, এখনও সরকারিভাবে ৪ হাজার ৩২৩ এবং বেসরকারিভাবে ৭৮ হাজার ৮৯৫ মোট ৮৩ হাজার ২১৮ হজযাত্রী প্রাক নিবন্ধন করেছেন।

হজ পালনের কয়েকমাস আগে সরকারের তরফ থেকে চূড়ান্ত নিবন্ধনের আহ্বান জানানো হয়। সেক্ষেত্রে যারা আগে প্রাক নিবন্ধন করেন, তালিকায় ক্রমানুসারে তারাই চূড়ান্ত নিবন্ধন করতে পারেন।

চূড়ান্ত নিবন্ধনের জন্য সরকার সময় নির্ধারণ করে দেয়। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কেউ যদি নিবন্ধন করতে ব্যর্থ হয়, তাহলে তালিকা থেকে ক্রমানুসারে অন্যদের সুযোগ দেওয়া হয়।

news24bd.tv/আইএএম

এই রকম আরও টপিক

পাঠকপ্রিয়