এমপি আনার হত্যা: খালে মিলল হাড়গোড়

এমপি আনার হত্যা: খালে মিলল হাড়গোড়

মাসুদা লাবনী

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার খুনের ঘটনায় আটক সিয়ামকে নিয়ে কলকাতার ভাঙড়ের সাতুলিয়া এলাকায় বাগজোলা খালে তল্লাশি চালায় সিআইডি। তল্লাশিকালে খাল থেকে একাধিক হার উদ্ধার করা হয় বলে জানায় কলকাতা পুলিশ।

কলকাতা পুলিশের দুর্যোগ মোকাবিলা দল (ডিএমজি) ও ভারতীয় নৌ সেনাদের সঙ্গে নিয়েই এদিন সিআইডির তদন্তকারী সদস্যরা বিজয়গড় বাজার থানার অন্তর্গত কৃষ্ণমাটি বাগজেলা খাল এলাকায় আসেন।

এলাকা শনাক্তকরণের পরেই ডুবুরি নামিয়ে তল্লাশি চালানোর পর এই হাড় উদ্ধার করা হয়।

ইতোমধ্যেই এই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে ‌সেন্ট্রাল ফরেনসিক সায়েন্স ল্যাবরেটরির (সিএফএসএল) কর্মকর্তারাও।

সিআইডির তরফ থেকেও বিষয়টি নিশ্চিত করে জানানো হয়েছে, ‌বাগজোলা খালে অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন আকারের বেশ কিছু হাড় উদ্ধার করা হয়েছে। যেগুলো মানুষের হাড় বলে মনে করা হচ্ছে। ’

শনিবার (৮ জুন) সিয়ামকে ১৪ দিনের রিমান্ড দিয়েছেন কলকাতার বারাসাতের আদালত।

এরপর রোববার সকালে তাকে নিয়ে কলকাতার বিভিন্ন স্থানে অভিযানে নামে কলকাতা পুলিশ।

এর আগে গ্রেপ্তার হাওয়া জিয়াদ বলেছিলেন এক জায়গার কথা। কিন্তু আজ সিয়াম বলেন বাগজোলা খালের কথা। সেই জায়গাতেই এদিন তল্লাশি চালানো হয়।

সিয়ামের দাবি, এগুলো বাংলাদেশের এমপি আনারের শরীরের হার। যদিও পুলিশের তরফ থেকে ফরেন্সিক পরীক্ষা করা হবে। এ জন্য হার ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত শুক্রবার আনার হত্যার ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে নেপালে আটক সিয়াম হোসেনকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এদিকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশিদ বলেছেন, আনার হত্যাকাণ্ডে যে বা যারাই জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে। শনিবার (৮ ‍জুন) রাজধানীর ডিবি কার্যালয়ে এক ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান তিনি।

হারুন অর রশিদ বলেন, আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যাকাণ্ডে যে বা যারাই জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে। প্রয়োজনে সিয়ামকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ভারতে যাবে ডিবি।

এর আগে গত ২৬ মে আনার হত্যার ঘটনা তদন্তে কলকাতায় যায় ডিএমপির ডিবিপ্রধান হারুন অর রশিদের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের প্রতিনিধি দল।

এরপর সিয়ামকে নেপালে আটকের খবর পেয়ে ১ জুন সেখানে উড়ে যান ডিবির হারুন। ৪ জুন নেপাল থেকে ফিরে শাহজালাল বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে নেপালের চুক্তি রয়েছে। ভারতীয় পুলিশের কাছে সিয়ামকে দিলেও হবে। কারণ তাকে নিয়ে আলামত উদ্ধারসহ তদন্তকে এগিয়ে নেয়া সহজ হবে।

news24bd.tv/তৌহিদ