ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

ইসরায়েলের একটি সংগঠনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ছবি: রয়টার্স

গাজার ত্রাণবহরে হামলা

ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

অনলাইন ডেস্ক

গাজার যুদ্ধবিদ্ধস্ত মানুষদের জন্য নিয়ে যাওয়া মানবিক ত্রাণের বহরে হামলার ঘটনায় ইসরায়েলের একটি সংগঠনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন কর্মকর্তারা একথা জানিয়েছেন। খবর রয়টার্সের।

সংগঠনটি নাম সাভ-৯।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর রিজার্ভ সেনা এবং পশ্চিম তীরের হুইদি বসতিস্থাপনকারীদের সঙ্গে এ সংগঠনের সম্পৃক্ততা আছে, যারা ত্রাণের চালানে বাধা দেওয়া, ক্ষতিগ্রস্ত করা এবং হয়রানি করার মতো কর্মকাণ্ডে জড়িত।

গাজায় ইসরায়েলের ৮ মাস ধরে চলা যুদ্ধে ফিলিস্তিনিরা ত্রাণের জন্য মরিয়া হয়ে আছে। গাজার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের হিসাবে, ইসরায়েলের হামলায় এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছে অন্তত ৩৭ হাজার মানুষ।

ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ত্রাণে বাধা দেওয়ার অভিযোগও আছে।

যদিও এমন অভিযোগ তারা অস্বীকার করে আসছে। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থমন্ত্রণালয়ের বিদেশি সম্পদ নিয়ন্ত্রণ কার্যালয় শুক্রবার সাভ-৯ কেনিষেধাজ্ঞার তালিকাভুক্ত করেছে। এই নিষেধাজ্ঞার খবর প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ইসরায়েলের এই সংগঠন গত ১৩ মে পশ্চিম তীরের হেবরনের কাছে ত্রাণ লুট করার পর দু’টি ত্রাণবাহী গাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। হিব্রু ভাষার ‘সাভ-৯’ মানে অর্ডার-৯। এই গোষ্ঠীর মাধ্যমে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর রিজার্ভ সেনাদের ডেকে নির্দেশ দেওয়া হয়। বলা হচ্ছে, গত ১৩ মে’র ওই ঘটনার পর সাভ-৯ ত্রাণ সরবরাহ ফিলিস্তিনের মুক্তিকামী গোষ্ঠী হামাসের হাতে পৌঁছানোয় বাধা দিয়েছে এবং হামাসকে ‘উপহার’ দেওয়ার অভিযোগ তুলেছে ইসরায়েল সরকারের বিরুদ্ধে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রদপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেছেন, “মাসের পর মাস ধরে সাভ-৯ এর লোকেরা বারবার গাজায় মানবিক ত্রাণ সরবরাহ ভেস্তে দেওয়ার চেষ্টা করেছে। তারা রাস্তা অবরোধ করেছে। কখনও কখনও সহিংসতার আশ্রয় নিয়েছে। জর্ডান থেকে গাজায় ত্রাণ পরিবহনে বাধা দিয়েছে তারা। পশ্চিম তীরের ট্রানজিটেও তারা বাধা সৃষ্টি করেছে। ত্রাণবাহী ট্রাক ক্ষতিগ্রস্ত করেছে এবং জীবনরক্ষাকারী মানবিক ত্রাণ রাস্তায় ফেলে দিয়েছে। ”

নিষেধাজ্ঞার আওতায় যুক্তরাষ্ট্রে থাকা সাভ-৯ এর যে কোনও সম্পদ জব্দ হবে এবং আমেরিকানদের সঙ্গে সংগঠনটির কোনও রকম লেনদেনও নিষিদ্ধ থাকবে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ফেব্রুয়ারিতে সই করা একটি নির্বাহী আদেশের আওতায় এই অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ হয়েছে। বাইডেনের এই নির্বাহী আদেশের আওতায় এর আগে ফিলিস্তিনি একটি যোদ্ধাদল এবং ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলায় জড়িত ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের ওপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল।

news24bd.tv/DHL

পাঠকপ্রিয়